আল্লাহ কে?



সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ জ্ঞান কী?
দুনিয়া এ প্রশ্নের বিভিন্ন উত্তর দেবে। সময়ের সাথে সাথে জবাব বদলে যাবে। কিন্তু ইসলাম আপনাকে বলবে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ জ্ঞান হল, আল্লাহকে জানা। শায়খুল ইসলাম ইবনু তাইমিয়্যাহ রাহিমাহুল্লাহ বলেছেন এ জ্ঞানের ব্যাপারে মানূষের মধ্যে চারটি শ্রেণী দেখা যায়।
.
প্রথম শ্রেণীতে হল ঐ ব্যক্তি যে আল্লাহর ব্যাপারে এবং তাঁর নির্ধারিত সীমারেখার ব্যাপারে, অর্থাৎ হারাম-হালালের, ফরয দায়িত্ব ইত্যাদি ব্যাপারে জ্ঞান রাখে।
দ্বিতীয় হল ঐ ব্যক্তি যে আল্লাহকে চেনে কিন্তু আল্লাহর নির্ধারিত সীমারেখার ব্যাপারে অজ্ঞ।
তৃতীয় হল ঐ ব্যক্তি যে আল্লাহর নির্ধারিত সীমারেখার ব্যাপারে জ্ঞান রাখে কিন্তু আল্লাহকে সঠিকভাবে চেনে না।
চতুর্থ হল ওই ব্যক্তি যে আল্লাহকেও চেনে না, তাঁর নির্ধারিত সীমারেখাগুলো সম্পর্কেও অজ্ঞ।
সর্বোত্তম হল প্রথম শ্রেণী, সর্ব নিকৃষ্ট হল চতুর্থ শ্রেণী।
.
আল্লাহর ব্যাপারে জানা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আল্লাহকে জানা এবং তাঁর ইবাদত করা হল মানুষের সহজাত প্রবণতা বা ফিতরাহ। কেবল যাদের ফিতরাহ কলুষিত হয়ে গেছে, তারাই আল্লাহকে চেনে না, এবং আল্লাহর ইবাদত করতে চায় না। অর্থাৎ তাদের ফিতরাতের মধ্যে কোন অসম্পূর্ণতা, কোন ত্রুটি দেখা দিয়েছে যার কারণে তারা সঠিক ফিতরাত থেকে সরে গেছে।
.
ভগ্ন হৃদয়কে কে জোড়া লাগান? যখন আপনি বিপদে পড়েন, কে আপনার ডাকে সাড়া দেন? কে নির্যাতিতকে বিজয় দেন? কে আপনার প্রতি আপনার মায়ের চেয়েও অধিক দয়াশীল? আল্লাহ! তিনি এবং একমাত্র তিনিই, আপনার কল্যাণ বা ক্ষতি করার ক্ষমতা রাখেন। সমগ্র বিশ্ব একত্রিত হয়ে, আপনার বিরুদ্ধে জড়ো হলেও, আল্লাহ যদি না চান, তাহলে তারা সবাই মিলে আপনার অনু পরিমাণ ক্ষতি করার ক্ষমতা রাখে না। তিনিই আল্লাহ যার প্রতি আপনি দু’আর হাত তোলার পর তিনি আপনাকে খালি হাতে ফেরান না। যখন সবাই ঘুমন্ত তখনো যে সত্ত্বা কান্নারত মানুষের কান্না শোনেন – তিনিই আল্লাহ।
.
আল্লাহকে জানা ছাড়া সঠিক ভাবে, পরিপূর্ণ ভাবে আল্লাহর ইবাদত করা সম্ভব না। আপনি এ ব্যাপারে যতো জানবেন আপনি ততো বেশি ইবাদত করবেন। আপনার অন্তরে আল্লাহর ভয় ততো বাড়তে থাকবে, আপনি আল্লাহর ব্যাপারে ততো বেশি ভরসা করতে পারবেন, ততো বেশি আশাবাদী হবেন। আল্লাহর ব্যাপারে জ্ঞান হল সকল জ্ঞানের মূল নীতি, কারণ এ জ্ঞানের মাধ্যমে আপনি আপনার অস্তিত্বের কারণ সম্পর্কে জানতে পারবেন।
.
মুসনাদে আহমাদে বর্ণিত একটি হাদিস অনুযায়ী, রাসূলুল্লাহ fdfa বলেছেন, মৃত্যুশয্যায় নূহ আলাইহিস সালাম তাঁর ছেলেদেরকে বলেছিলেন – যদি তোমরা সাত আসমান আর সাত যমিনকে, এবং যা কিছু তাদের মধ্যে আছে, সবকিছুকে একত্রিত করে এক পাল্লায় রাখো আর অন্য পাল্লায় লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ রাখো – তাহলে দ্বিতীয় পাল্লা প্রথম পাল্লার চেয়ে ভারি হবে। লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ – শুধু এ শব্দগুলো যদি এক পাল্লায় রাখা হয়, তবে তার ওজন সাত আসমান ও সাত যমিন এবং এর মধ্যবর্তী সবকিছুর সম্মিলিত ওজনের চেয়ে বেশি হবে।
.
লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ – আল্লাহ ব্যাতীত আর কোন ইলাহ নেই, আর কোন উপাস্য নেই, আনুগত্যের যোগ্য আর কোন সত্ত্বা নেই। লা ইলাহার অর্থ জানা আল্লাহকে জানার অংশ।
.
জানেন আল্লাহ কে?

source

Leave a Reply